দ্য নাইট অভ দ্য হান্টার-১৯৫৫

দ্য নাইট অভ দ্য হান্টার-১৯৫৫ (The Night of the Hunter)

  • Post author:
  • Post last modified:08/02/2022

দ্য নাইট অভ দ্য হান্টার-১৯৫৫ (The Night of the Hunter) চলচ্চিত্রটি কেবল একবার দেখলে আপনি সন্তুষ্ট হতে পারবেন না। ১৯৫৫ সালের এই চলচ্চিত্রটিও আমার দেখা ১০০ বছরের ১০০টি চলচ্চিত্রের মধ্যে একটি। সুইডেনের জন্মগ্রহণকারী সিরিয়াল কিলার হ্যারি পাওলের জীবনের উপর ভিত্তি নির্মিত এই চলচ্চিত্রটি প্রতিনিয়ত আমাদের মনে করিয়ে দেয় কীভাবে মানুষের উত্তম অবয়বের মাঝে লুকিয়ে থাকতে পারে ‘ভেড়ার বেশে নেকড়ে’।

টিভি সিরিয়াল Fargo’র  ন্যায়, The Night of the Hunter একটি সামাজিকভাবে মর্যাদাবান একজন মানুষের জীবনকে উপস্থাপন করেছে, যিনি একজন প্রচারকের ছদ্মবেশে অপরাধ সংঘটিত করে। একজন প্রচারক হওয়ার কারণে হ্যারি পাওয়েল যেন প্রতিটি অপরাধ সংঘটিত করার জন্য ঈশ্বরের অনুমোদন পেয়েছেন। তিনি একের পর এক ধনী বিধবাকে হত্যার আগে তাদের অর্থ ছিনতাই করার তাগিদে অনুসরণ করেছিলেন।

দ্য নাইট অভ দ্য হান্টার
দ্য নাইট অভ দ্য হান্টার (The Night of the Hunter-1955) পোষ্টার।

The Night of the Hunter দুজন শিশু যেভাবে একটি অপ্রত্যাশিত জীবন-হুমকিমূলক পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছিল তার বর্ণনা । কিশোর জন ও তার ছোট বোন পার্ল কে তাদের বাবা ১০,০০০ ডলার অর্থ জনকে দেওয়া পর তাদের মাকে এ ব্যাপারে না বলার জন্য তাদেরকে রাজি করালেন।

১৯৫৪ সালের অর্থনৈতিক মন্দা চলাকালীন একদিন এক উদ্বিগ্ন পিতা, বেন হার্পার, একদিন একটি ব্যাঙ্ক ডাকাতি করেন, যে ঘটনার সাথে দু’জন লোকের হত্যা-কাণ্ডও জড়িত ছিল। তার সহ-বন্দী হ্যারি পাওয়েল কে , যিনি গাড়ি চুরির অভিযোগে ৩০ দিনের জন্য কারাগারে বন্দী ছিলেন, দেওয়া এক স্বীকারোক্তিতে বেন বলেছিলেন যে তিনি ব্যাংকটি ডাকাতি করেছিলেন কারণ তিনি দেখেছিলেন তার চারপাশের শিশুরা কীভাবে অনিশ্চিত ভবিষ্যতের শিকার হচ্ছিল।

এক উদ্বিগ্ন পিতা হিসেবে বেন তার বাচ্চাদের ভবিষ্যতের বেঁচে থাকা নিশ্চিত করতে ব্যাংক ডাকাতি করেছিলেন। যখন তাদের মা উইলা হার্পার দুরে কোথাও গিয়েছিলেন, বেন তখন পুলিশ সদস্যরা পিছু নেওয়া অবস্থায় ১০ হাজার ডলার নগদ অর্থ নিয়ে হাফাতে-হাফাতে বাড়িতে পৌঁছেছিল। পুলিশের হাতকড়ায় বন্ধী হয়ে যাওয়ার আগে এবং পুলিশ দূরে থাকা অবস্থাতেই তাদের অজান্তে, বেন ছোট্ট জনকে অর্থটা দিয়ে দিতে সক্ষম হন, আর বেন জনকে শপথ করান যেন সে জীবন দিয়ে হলেও তার ছোট বোনকে রক্ষা করে এবং তাদের মাকে যেন অর্থের বিষয়ে কোন কিছুই না বলে, যেহেতু তার বিবেচনা-বোধের অভাব রয়েছে। জন অর্থটা তার ছোট বোনের খেলনা পুতুল, যেটি সে সবসময়ই বহন করে, তার ভিতরে পুরে রেখেছিল।

পরে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে বেনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। প্রচারক হ্যারি বেনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়ার পর বেনের বিধবার সন্ধানে ছুটে চলে, সেই অর্থ সম্পর্কে জানতে পারার পর। কিছুদিন পরই তিনি উইলা হার্পারকে বিয়ে করেন। তবে, তাদের বিবাহকে শারীরিকভাবে সু-সম্পূর্ণ করার পরিবর্তে প্রচারক হ্যারি এটিকে শারীরিক বন্ধনের চেয়ে একটি খাঁটি আধ্যাত্মিক  সম্পর্কের পর্যায়ে রাখতে পছন্দ করেন। এর মধ্যে প্রচারক, অর্থের সন্ধান বের করার বিষয়ে গোপনে জন এবং পার্লের উপর তার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখেন, আর তিনি উইলাকে তার ধর্মীয় চালচলনে এমনভাবে প্ররোচিত করতে সমর্থ হন যে, ভুলভাবে হলেও উইলা বিশ্বাস করতে শুরু করেছিলেন যে তিনি তার জীবনে অর্থের পরিবর্তে তার আত্মাকে পরিত্রাণ দিতে এসেছেন।

এক রাতে তিনি তাকে হত্যা করেছিলেন এবং তার দেহটি নিকটবর্তী একটি নদীতে ফেলে দেন যেখানে জননের পিতার একটি ছোট নৌকা ছিল আর হ্যারি ছোট জন পার্লকে অনুসরণ করতে থাকে। বিপদ আসন্ন টের পেয়ে তারা পালিয়ে গিয়ে পাশের পার্লারে লুকিয়ে থাকে যেখানে তাদের মা কাজ করতেন। সাধারণ মানুষের প্রশ্ন-হীন ধর্মীয় বিশ্বাসের সুবিধা নিয়ে তিনি সফলতার সাথে উইলার প্রতিবেশীকে নিশ্চিত করেছিলেন যে অতিরিক্ত মদ্যপানের কারণে তিনি মারা গেছেন।

পরের দিন, রাতে, প্রচারকের অনুসরণের দরুন পরে জন এবং পার্ল নদীতে পৌঁছতে সমর্থ হই ও নৌকায় উঠতে উঠে নদীর স্রোতে নৌকা ভাসিয়ে দিকে সক্ষম হয়। রাতের পর তারা খেলনা পুতুলটি সহ ক্লান্ত আর ক্ষুধার্ত অবস্থায় এক সকাল ঘুমন্ত অবস্থায় আঁচড়ে পড়ে, এবং রাহেল কুপার নামের এক দয়ালু নিঃসন্তান মহিলা, যেন ইতিমধ্যে আরও তিনটি দত্তক নেওয়া বাচ্চাদের আশ্রয় দিয়েছিলেন, সে খুঁজে পান। তিনি তাদের গোসল দিয়ে খাওয়ালেন এবং তাদেরকে তিনি নিজের করে নিলেন।

প্রচারক সেখানেও জন ও পার্লকে অনুসরণ করেছিলেন এবং রাহেল কুপারের দরজার কাছে একদিন উপস্থিত হয়ে দাবি করলেন যে তারা তাঁর সন্তান। ছোট জন যদিও তাদের রক্ষককে নিশ্চিত করেছিলেন যে তিনি তাদের বাবা নন। রাহেল কুপারকে বোঝাতে আর যে পুতুলটি পার্ল বহন করে চলছিল তাকে পুনরুদ্ধার করায় ব্যর্থ হয়ে তাকে বন্দুকের ভয় দেখিয়ে সে প্রচারকে পিছু হটতে বাধ্য করা করেছিলেন কিন্তু প্রচারক দিনের শেষে পুনরায় আসার হুমকি দিয়ে চল গেলেন।

রাতে প্রচারক এসেছিলেন। তিনি তার বাচ্চাদের সুরক্ষার জন্য বন্দুক নিয়ে প্রস্তুত ছিলেন রাহেল কুপার। প্রচারক ঘরে ঢুকতে চেষ্টা করার সময় রাহেল কুপার তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। প্রচারক যখন মাটিতে পড়ে গিয়ে খোঁড়াখুঁড়ি করছিলেন তখন তিনি থানায় ফোন করেছিলেন। সকাল হতেই পুলিশ এসে উইলা হার্পারকে হত্যার দায়ে প্রচারককে গ্রেপ্তার করে। আর ছোট জন তার কাছে থাকার অর্থ নিয়ে গিয়ে প্রচারকের দিকে ছুড়ে মারে আর বলে “নাও, নাও সে অর্থ, আমাদের এর দরকার নেই”, আর অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

তার ভাগ্য  অনুসন্ধানে কমপক্ষে পনেরো জন বিধবা হ্যারি পাওলের অপরাধের শিকার হন। পরে হ্যারি পাওয়েলকে বিচার আদালত মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করে।

দ্য নাইট অভ দ্য হান্টার-১৯৫৫ (The Night of the Hunter): যে জিনিসটি আমার হৃদয়ে আঘাত হেনেছে

অসহায়, এতিম জন এবং পার্লকে কেন্দ্র করে সবকিছু। অসহায় জন যেভাবে তাঁর বোনকে কখনই একা থাকতে দেয়নি এবং যে কোনও পরিস্থিতিতে তার যত্ন নেওয়ার প্রতি জনের দায়বদ্ধ অনুভব করার বিষয়টি কোন চলচ্চিত্রে দেখতে পাওয়া সত্যিই একটি অমূল্য বিষয়।

জনের চিমচাম কাপড়, পিতা-মাতার অনুগত এবং বুদ্ধিমান এবং দায়িত্বশীল জন আমাকে বিশ্বের সমস্ত বড় ভাইদের মহৎ কর্তব্য আর তা কতটা মহৎ হতে পারে তা স্মরণ করিয়ে। তার বোনের প্রতি তার ভালবাসা ছিল অতুলনীয়। আমি জনকে এক মুহূর্তের জন্য হাসতে এমনকি মুচকি হাসতেও দেখিনি। তাকে দেখে সর্বদা মনে হচ্ছিল যেন সে কিছু একটা ভাবছে, কিছু একটা বড়, আরো বড়ো, যেন কিছু একটা সত্যিই তার মাথায় খেলছে, যেন একজন সত্যিকারের প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ।

আমি সম্ভবত চলচ্চিত্রটি ভবিষ্যতে আরও অনেকবার দেখবো, কেবল এই কারণে নই যে ছবিটি সন্তানদের প্রতি তাদের পিতামাতার সুরক্ষিত ভবিষ্যতের বিষয়ে যেন মহান দায়িত্বের বার্তা পৌঁছে দেই, কারণ আমি ছোট্ট জনের ব্যক্তিত্বকে বা আচারকে অত্যন্ত ভালবাসি: যেভাবে সে ‘বাবা’ বলে ডাকে, যেভাবে সে নিজেদের বাঁচানোর জন্য সংগ্রাম করে যায়, যেভাবে সে বারান্দায় দাঁড়িয়ে বাইরের আবছা অন্ধকারের দিকে তাকিয়ে থাকে একা একা, যেভাবে সে তার একাকীত্ব অনুভব করে এবং পরিস্থিতিকে অনুধাবন করার যে উপায়গুলি জনের রয়েছে।

আরেকটি বিষয় যা আমাকে ভাবতে বাধ্য করেছিল তা হ’ল সন্তানের ভবিষ্যতের প্রধান্য দেওয়ার বিবেচনা করার ক্ষেত্রে বাবা-মায়েরা কতটা মরিয়া হয়ে উঠতে পারেন। বেন হার্পার একজন বাবা হওয়ার দরুন বিষয়টি পুরোপুরিভাবে অনুধাবন করেছিলেন এবং আশা করেননি তাঁর বাচ্চারাও যেন সেই সময়ের অর্থনৈতিক মন্দার প্রভাবে সৃষ্ট বেকারত্বের কারণে তার চারপাশের অন্যান্য শিশুদের ন্যায় একই কঠোর পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়।

দ্য নাইট অভ দ্য হান্টার-১৯৫৫ (The Night of the Hunter Quotes ): উক্তি

The Night of the Hunter যেহেতু প্রচারকের বেশে একজন অপরাধীর কথা বলে, তেমনি চলচ্চিত্রটির অনেক সংলাপও পবিত্র বাইবেল দ্বারা অনুপ্রাণিত। তবুও, আমি কয়েকটি স্মরণীয় উদ্ধৃতির উল্লেখ করেছি নিচে।

“যদিও আমরা ভালবাসাকে বোকামির চলে খুঁজে চলছি, রুবি,  খুঁজছি, রুবি, যদিও তা কেবল এখনই অনুধাবন করছি”।

“ছোটদের জন্য পৃথিবী কষ্টকর”।

“বাছা, পরিত্রাণ একটি শেষ মুহূর্তের ব্যবসা”।

“আপনি যখন চল্লিশ বছর ধরে কোনও পুরুষের সাথে বিবাহিত থাক তখন আপনি জানেন যে কোন কিছুরই মূল্যহ্রাস ঘটে”।

” স্বর্গীয় দৃষ্টিকোণ থেকে আমার কাছে বিয়ে একটি দুটি আত্মার মিশ্রণকে উপস্থাপন করে”।

” একজন অপরিচিত মহিলা একটি সরু গর্ত “।

সব কিছু বলার পরেও, The Night of the Hunter চলচ্চিত্রটি এমন একটি ছবি যার সাথে আপনার কাটানো সময়কে সার্থক করে তুলতে পারে।

Romzanul Islam

Thinking out of the convention and moving forward with knowledge and reasons are always my styles. Researching, watching the best films, reading and collecting the best books to enrich me is my deadly passion. Stoicism, liberalism, feminism and aversion to material success are my ideals.

Leave a Reply