প্রযুক্তির উপর আক্রমন (Assault on tech)
Xi Jinping's assault on technology. Photo credit: The Economist.

প্রযুক্তির উপর আক্রমন চীনের গতিপথ পরিবর্তন করবে

  • Post author:
  • Post last modified:September 29, 2021

The Economist এর  Xi Jinping’s assault on tech will change China’s trajectory’র অনুবাদ

গত দুই দশক ধরে চীনের সকল অর্জনের মধ্যে সবচেয়ে চিত্তাকর্ষক অর্জন হলো এর প্রযুক্তি শিল্পের উন্নতি। আলিবাবা আমাজনের তুলনায় দ্বিগুণ ই-কমার্স কার্যক্রম পরিচালনা করে। চীনের বহুজাতিক কোম্পানি টেনসেন্টের ১.২ বিলিয়ন ব্যবহারকারী নিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সুপার-অ্যাপটি পরিচালনা করে। চীনের প্রযুক্তি বিপ্লব উৎপাদন খাতকে ছাড়িয়ে ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (AI) মত নতুন ক্ষেত্র তৈরির মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদী অভ্যন্তরীণ অর্থনৈতিক সম্ভাবনাকে পরিবর্তন করতে সহায়তা করেছে। চীনের সমৃদ্ধিকে এগিয়ে নেয়ার পাশাপাশি, চীনের চমকপ্রদ প্রযুক্তি শিল্প আমেরিকার আধিপত্যের জন্য হতে পারে এক প্রতিবন্ধকতার ভিত্তি। 

সে কারণেই তার দেশের ৪ ট্রিলিয়ন ডলার মূল্যের প্রযুক্তি শিল্পের উপর প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর আক্রমণ এতটা উল্লেখযোগ্য। একচেটিয়া বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ব্যবসায় ন্যায়সঙ্গত প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি করার অপব্যবহার থেকে শুরু করে তথ্য লঙ্গনের দায়ে বেশ কয়েকটি সংস্থার বিরুদ্ধে ৫০টিরও বেশি নিয়ন্ত্রক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। সরকারের এই নিষেধাজ্ঞা এবং জরিমানা শেয়ারের মূল্যের উপর প্রভাব ফেলেছে, যা সারা বিশ্বে বিনিয়োগকারীদের প্রায় ১ ট্রিলিয়ন ডলারের ক্ষতির সম্মুখীন করেছে।  

শি জিংপিঙের তাত্ক্ষনিক উদ্দেশ্য হতে পারে শক্তিশালী ব্যবসায়ীদের দর্পচূর্ণ করা এবং অনিয়ন্ত্রিত প্রযুক্তি বাজারের উপর নিয়ন্ত্রকদের আরো নিয়ন্ত্রন দেওয়া। কিন্তু আমরা যেমনটা আগে বলেছি, কমিউনিস্ট পার্টির গভীর উচ্চাকাঙ্খা হল দলের পরিকল্পনা অনুযায়ী শিল্পকে নতুনভাবে সাজানো। এতে চীনের স্বৈরাচারীরা আশা করে যে তা তাদের দেশের প্রযুক্তিগত প্রান্তকে আরও ধারালো করার সাথে প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি করবে এবং ভোক্তাদের উপকার করবে। 

ভূরাজনীতিও সম্ভবত তাদের তাড়িত করছে। আমেরিকান প্রযুক্তি দিয়ে তৈরি পণ্যের উপর নিষেধাজ্ঞা প্রমাণ করে যে আধাপরিবাহী পদার্থ বা সেমিকন্ডাক্টরের মতো গুরুত্বপূর্ণ পণ্যের বেলায় চীনকে সংকটপূর্ণ ক্ষেত্রে আরও স্বনির্ভর হওয়া দরকার। এই ধরনের “হার্ড টেক” উপকৃত হতে পারে যদি সামাজিক মাধ্যম, গেমিং শিল্পের উপর কঠোর অবস্থান প্রতিভাবান প্রকৌশলী এবং প্রোগ্রামারদের এর পথে চালিত করে। তবে প্রযুক্তির উপর এই আক্রম একটি বিশাল জুয়াও বটে, যা শিল্পোদ্যোগ এবং অর্থনৈতিক বৃদ্ধিকে দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি সাধন করতে পারে। 

বিশ বছর আগে চীনকে প্রযুক্তিগত অলৌকিকতার দোরগোড়ায় দেখা যায়নি। সিলিকন ভ্যালি আলিবাবার মতো অগ্রগামীদের নকলবাজ হিসাবে প্রত্যাখ্যান করেছে, যতক্ষণ না এসব প্রতিষ্ঠান ই-কমার্স এবং ডিজিটাল পেমেন্টের ক্ষেত্রে সিলিকন ভ্যালি থেকে এগিয়ে গিয়েছে। আজ ৭৩ চীনা ডিজিটাল সংস্থার মূল্য প্রায় ১০বিলিয়ন ডলারেরও বেশি। বেশিরভাগেরই পশ্চিমা বিনিয়োগকারী এবং বিদেশ-শিক্ষিত নির্বাহী রয়েছে। গতিশীল ব্যক্তিগত বিনিয়োগ বাস্তুতন্ত্র গাদায় গাদায় নতুন নক্ষত্র তৈরি করছে। চীনের টেনসেন্টের ১৬০টি কোম্পানি যা একটি “ইউনিকর্ন”এ পরিণত হয়েছে তার মূল্য ১ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি যার মধ্যে অর্ধেকটা জুড়ে রয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, বিগ ডেটা এবং রোবোটিক্সের মতোর ক্ষেত্র সমূহ। 

২০০০ সালের রাশিয়ার গোষ্ঠী শাসকদের বিরুদ্ধে ভ্লাদিমির পুতিনের যুদ্ধের বিপরীতে, চীনের নিষেধাজ্ঞা অভ্যন্তরীণদের রাজনৈতিক ক্ষমতার সূত্রে প্রাপ্ত সুযোগ-সুবিধার জন্য নই। প্রকৃতপক্ষে, তা পাশ্চাত্যের নিয়ন্ত্রক এবং রাজনীতিবিদদের অনুপ্রাণিত করা উদ্বেগের প্রতিধ্বনি: যে, প্রযুক্তি একচেটিয়া বাজারের দিকে ঝুঁকছে এবং প্রযুক্তি সংস্থাগুলি তথ্য সংগ্রহ করে, সরবরাহকারীদের অপব্যবহার করে, শ্রমিকদের শোষণ করে এবং জনসাধারণের নৈতিকতাকে ক্ষুন্ন করে। 

শক্তিশালী আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করা বিলম্বিত ছিল। চীন যখন ব্যবসার জন্য খুলে যায়, দলটি অর্থনৈতিক, টেলিকম এবং শক্তির উপর শ্বাসরোদ্ধকরভাবে নিয়ন্ত্রন ধরে রাখে, তবে প্রযুক্তির উপর নিয়ন্ত্রন তুলে নেয়। প্রযুক্তির অগ্রদূতেরা এ নিয়ন্ত্রণহীনতাকে বিস্ময়করভাবে দ্রুত বৃদ্ধির ক্ষেত্রে ব্যবহার করেছে। চীনের পরিবহন সরবরাহকারী কোম্পানী ডিডি’র (DiDi) আমেরিকার জনগনের চেয়ে বেশি ব্যবহারকারী রয়েছে। 

যাইহোক, বড় বড় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মগুলি ছোট সংস্থাগুলিকে পদদলিত করার স্বাধীনতাকে কাজে লাগিয়েছে। তারা ব্যবসায়ীদেরকে একাধিক প্ল্যাটফর্মে বিক্রি করা থেকে বিরত রাখে। তারা খাদ্য সরবরাহকারী চালকদের এবং অন্যান্য অনলাইন প্লাটফর্ম কর্মীদের মৌলিক সুযোগ-সুবিধাকে অগ্রাহ্য করেছে। দলটি এই ধরনের অসদাচরণের অবসান ঘটাতে চায়। এটি এমন একটি উচ্চাকাঙ্ক্ষা যা অনেক বিনিয়োগকারীরা সমর্থন করে। 

প্রশ্ন হল কিভাবে? চীন একটি নীতি গবেষণাগারে পরিণত হতে চলেছে যেখানে দায়বদ্ধহীন একটি রাষ্ট্র একবিংশ শতাব্দীর অপরিহার্য অবকাঠামো নিয়ন্ত্রণের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে বড় সংস্থাগুলির সাথে সংগ্রাম করছে। সরকারের কথা অনুযায়ী কিছু তথ্য বলে যে “উৎপাদনের ফ্যাক্টর”, যেমন জমি বা শ্রম, জনসাধারণের মালিকানায় চলে যেতে পারে। রাষ্ট্র সম্ভবত প্ল্যাটফর্মগুলির মধ্যে আন্তঃকার্যক্ষমতা প্রয়োগ করতে পারে (যাতে WeChat এর প্রতিদ্বন্দ্বীদের ব্লক করতে না পারে)। আসক্তিকর অ্যালগরিদম সমূহকে আরও কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রন করা হতে পারে। এর সবই মুনাফাকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে, তবে বাজারকে আরও ভালোভাবে কার্যকর করে তুলতে পারে। 

কিন্তু ভুল করলে চলবে না যে, উচ্ছৃঙ্খল প্রযুক্তির বিরুদ্ধে চীনের কঠোর অবস্থান কমিউনিস্ট পার্টির নিরঙ্কুশ শক্তির প্রদর্শনও বটে। যার মধ্যে রয়েছে দুর্নীতিগ্রস্ত অভ্যন্তরীণ লোকজনের কারণে অতীতে দলের অগ্রাধিকার সমূহ প্রায়ই কায়েমি স্বার্থের শিকার হয় এবং দলটি প্রয়োজনীয় বৈদেশিক পুঁজি লাভের চেষ্টা এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির দ্বারা ধরাশায়ী ছিল। উগ্র গতিতে নতুন নিয়ম জারি করে এবং নতুন উদ্যমে তাদের প্রয়োগ করে দলটি এখন অনুপ্রাণিত বোধ করছে। চীনের নিয়ন্ত্রণ অপরিপক্কতা সম্পূর্ণরূপে প্রকাশিত হয়েছে। কেবল মাত্র ৫০ বা তারও বেশি লোক দেশটির প্রধান একচেটিয়া বিরোধী সংস্থার কর্মী হিসেবে আছে কিন্তু তারা একটি কলমেরে একটি আচঁড়ে ব্যবসায়িক আদর্শ ধ্বংস করতে পারে। যথাযথ প্রক্রিয়া থেকে বঞ্চিত হয়ে কোম্পানিগুলোকে বাঁকা হাসি দিয়ে সহ্য করা চাই।

উদার অর্থনীতির উপর পশ্চিমা শিক্ষাকে চীনের নেতারা সফলভাবে অগ্রাহ্য করে কয়েক দশক অতিবাহিত করেছে। তারা হয়তো প্রযুক্তি শিল্পের উপর তাদের দমনকে রাষ্ট্রীয় পুঁজিবাদের নীতির পরিশোধন হিসেবে দেখতে পারে– যা সমৃদ্ধিকে সমন্বয় করার এবং  চীনকে স্থিতিশীল এবং দলকে ক্ষমতায় রাখার একটি নীলনকশা। প্রকৃতপক্ষে, চীনের জনসংখ্যা যখন কমতে শুরু করে, দলটি রাষ্ট্রের নির্দেশনার মাধ্যমে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করতে চায়, যার মধ্যে রয়েছে কারখানা সমুহকে স্বয়ংক্রিয় করে তোলা এবং অবকাঠামোগত ও উৎপাদমুখি বৃহৎ নগর গুচ্ছ গঠন করা। 

তবুও চীনা প্রযুক্তিকে নতুন রূপ দেওয়ার প্রচেষ্টা সহজেই ব্যর্থ হতে পারে। বহিঃবিশ্বে তা সন্দেহ জাগিয়ে তুলতে পারে, সেবা বিক্রির এবং একবিংশ শতাব্দীতে বিশ্বব্যাপী প্রযুক্তিগত মান নির্ধারণ করতে, যেমনটি বিংশ শতাব্দিতে আমেরিকা করেছিল, দেশটির উচ্চাকাঙ্ক্ষাকে বাধাগ্রস্ত করবে। উন্নতির পথে যে কোনো অন্তরায় চীনের সীমানার বাইরেও অনুভূত হবে। 

একটি বড় ঝুঁকি হল প্রযুক্তির উপর এই কঠোর অবস্থান চীনের মধ্যে উদ্যোক্তা মনোভাবকে নিস্তেজ করে দেবে। অর্থনীতি যতই বস্তু উৎপাদন থেকে সেবার দিকে স্থানান্তরিত হয়, অত্যাধুনিক পুঁজিবাজার দ্বারা সমর্থিত স্বতস্ফূর্ত ঝুঁকি নেওয়া ততই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। চীনের বেশ কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি ব্যবসায়ী তাদের কোম্পানি এবং জনজীবন থেকে সরিয়ে এসেছে। আগ্রহীরা তাদের অনুকরণ করার চেষ্টা করার আগে পুনরায় চিন্তা করবে, এই জন্য নই যে কঠোর অবস্থান পুজির পুঁজির মুল্য বৃদ্ধি করেছে। 

প্রযুক্তির উপর আক্রমন: নতুন ব্যবসায় মন্দা 

চীনের সবচেয়ে বড় প্রযুক্তি সংস্থাগুলি এখন আমেরিকান সংস্থাগুলির তুলনায় প্রতি ডলারে বিক্রির গড় ২৬% ছাড়ে ব্যবসা করে যাচ্ছে। নতুন ব্যবসা সমূহ, যেমন ছোট ছোট সংস্থাগুলি ম্যাপিং অ্যাপসের মাধ্যমে ডিডির (DiDi) কাছ থেকে রাইড-ডাকা ব্যবসা গ্রহণ করা, সরকারের প্রধান লক্ষ্যবস্তুতে খোঁটা দিচ্ছে। চলমান অভিজান দ্বারা উৎসাহিত হওয়া তো দুরের কথা, তারা বরং অনাবৃত হওয়া অনুভব করতে পারে। অর্থনৈতিক উন্নয়ন মানে মূলত সৃজনশীল বিনাশ। চীনের স্বৈরাচারী নেতারা দেখিয়েছেন যে তারা বিনাশের ব্যবস্থাপনা করতে পারে। এই প্রযুক্তি বিশৃঙ্খলা সৃজনশীলতাকে বাড়িয়ে তুলবে কিনা তা নিয়ে অনেক সংশয় রয়ে গেছে।

Leave a Reply